সংবাদ :
জাতীয় : জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত- বাংলাদেশের আকাশে আজ পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে, ১০ জুলাই রবিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে ইসলামিক বিশ্ব : আরাফাতে খুতবা দিবেন শায়খ ড. মুহাম্মাদ আবদুল করীম , হজের খুতবা সরাসরি সম্প্রচার হবে বাংলাসহ ১৪ ভাষায় আন্তর্জাতিক : আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ৩য় স্থান অর্জনকারী সালেহ আহমদ তাকরিমকে সংবর্ধনা প্রদান করল ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন

  • টেক্সট সাইজ
  • A
  • A
  • A
  • |
  • রং
  • C
  • A
  • A
  • A

মহানবী সা: এর জীবনী
প্রিন্ট
প্রকাশঃ : বুধবার ২৪/১০/২০১৮

বিশ্বমানবতার ভীষণ বিপর্যয়ের এক চরম মুহূর্তে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পৃথিবীতে শুভাগমন ঘটে। আজ থেকে দীর্ঘদিন আগে ৫৭০ খ্রিষ্টাব্দের ২৯ আগস্ট, রবিউল আউয়ালের ১২ তারিখে পবিত্র মক্কা নগরের সম্ভ্রান্ত কুরাইশ বংশে স্নেহময়ী মা আমিনার গর্ভে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) জন্মগ্রহণ করেন। এমন এক যুগসন্ধিক্ষণে তাঁর আগমন হয়, যখন সমগ্র আরব দেশ তথা সারা বিশ্ব অজ্ঞানতা ও পাপাচারের ঘোর তমসায় আচ্ছন্ন। নীতির নামে দুর্নীতি, শাসনের নামে শোষণ, ধর্মের নামে অধর্ম ইত্যাদি মনগড়া মতবাদের ফলে সামগ্রিকভাবে মানবসমাজ দুঃসহ বেদনায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল। এহেন কঠিন দুর্বিষহ অবস্থায় বিশ্বমানবতার মুক্তির সনদ নিয়ে কোনো মহামানবের আবির্ভাবের প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে অনুভূত হতে থাকে। রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে শান্তি, মুক্তি, প্রগতি ও সামগ্রিক কল্যাণের জন্য বিশ্ববাসীর রহমত হিসেবে আখ্যায়িত করে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি আপনাকে সমগ্র বিশ্বজগতের জন্য রহমতরূপে প্রেরণ করেছি।’ (সূরা আল-আম্বিয়া, আয়াত-১০৭) 
মানুষ তখন মানবিক গুণাবলি ও চারিত্রিক আদর্শ হারিয়ে পশুত্বের পর্যায়ে উপনীত হয়েছিল। এ চরম দুর্গতি থেকে মানুষকে উদ্ধার করার জন্য ত্রাণকর্তারূপে বিশ্বনবীর আবির্ভাব অত্যাসন্ন ও অপরিহার্য হয়ে পড়েছিল। তাই আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বিশ্বশান্তি, ভ্রাতৃত্ব, ঐক্য, সংহতি ও মানবতার জাগতিক, পারলৌকিক কল্যাণের সুমহান বাণীবাহক ও মুক্তিদাতারূপে তাঁর সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে সব দেশের, সব যুগের ও সব মানুষের নবী হিসেবে পৃথিবীতে পাঠালেন। সারা বিশ্বের জুলুম, নির্যাতন, অত্যাচার, অবিচার, ফেতনা-ফ্যাসাদ, অন্যায়ভাবে মর্মান্তিক হত্যাযজ্ঞের মূলোৎপাটন ঘটিয়ে তিনি সত্য-ন্যায়ের শিক্ষা ও উত্তম আদর্শ স্থাপন করে জাগতিক শান্তি ও সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের নিশ্চয়তা বিধান করেন এবং বিশ্বমানবতার কল্যাণ, মুক্তি ও সাম্য প্রতিষ্ঠার একটি অনন্য দৃষ্টান্ত তুলে ধরেন। আল্লাহ তাআলা নবী করিম (সা.)-কে মানবজীবনের সব সমস্যার সমাধানদাতা ও জীবনবিধানস্বরূপ আল-কোরআন প্রদান করে ঘোষণা করেন, ‘আমি তোমাকে সমগ্র মানুষের জন্য শুভ সংবাদদাতা ও সতর্ককারী হিসেবে পাঠিয়েছি।’ (সূরা সাবা, আয়াত-২৮)
হজরত মুহাম্মদ (সা.) সুন্দর আচরণ, উত্তম চরিত্র-মাধুর্যের দ্বারা মানবিক গুণাবলি ও সামাজিক মূল্যবোধের শিক্ষা দেন এবং আল্লাহর একত্ববাদের স্বীকৃতি ও তাঁর আনুগত্যের মাধ্যমে মানবজীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য অর্জনের পথনির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি আল-কোরআনের ঐশী আলোকে আইয়্যামে জাহেলিয়াতের শত শত বর্ষের পুঞ্জীভূত অন্ধকার বিদূরিত করে বিভ্রান্ত-আত্মভোলা মানবজাতিকে সত্য, সরল ও সঠিক পথপ্রদর্শন করেন। বিশ্বের অজ্ঞানতা আর মূর্খতার অন্ধকার দূরীভূত করে তিনি মানবজাতিকে শিক্ষা দিয়েছেন জ্ঞান, মানুষ খুঁজে পেয়েছে পথের দিশা। মহানবী (সা.)-এর অনুপম শিক্ষায় মানুষ আল্লাহর দাসত্ব, রাসুলের আনুগত্য ও অপরাপর মানুষের প্রতি হিংসা-বিদ্বেষের স্থলে আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি, শান্তিপূর্ণ সহ-অবস্থানসহকারে ভ্রাতৃত্বের মন্ত্রে উজ্জীবিত হলো।
বিশ্বমানবতার মুক্তিদূত মহানবী (সা.)-এর জীবন হচ্ছে পবিত্র কোরআনের বাস্তব রূপ। মানবজাতির মুক্তি, কল্যাণের দিশারী হিসেবে অবতীর্ণ সবশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ ঐশী ধর্মগ্রন্থ আল-কোরআনের যাবতীয় আদেশ-নিষেধের পূর্ণাঙ্গ বাস্তব প্রতিফলন ঘটেছে বিশ্বনবীর জীবনে। সকল কুসংস্কার, অন্ধত্ব, হিংসা-বিদ্বেষ, নিপীড়ন ও দাসত্বের শৃঙ্খল ভেঙে শোষণ ও বৈষম্যহীন এক ন্যায়ভিত্তিক আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠায় তিনি আজীবন নিয়োজিত ছিলেন। তাঁর প্রচারিত ইসলাম মানবজাতিকে কল্যাণ, শান্তি ও প্রগতির দিকনির্দেশনা দিয়েছে। তাই নবী করিম (সা.)-এর অনুপম আদর্শ সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণযোগ্য। অন্ধকার বিদূরিত করে তিনি জ্বেলেছিলেন সত্যের অনির্বাণ আলো। পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ, পরমতসহিষ্ণুতা, সত্য, ন্যায় ও সাম্যের বাণী প্রচার করে তিনি সারা বিশ্বে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। এ সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও পরকালকে ভয় করে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্য আল্লাহর রাসুলের মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ।’ (সূরা আল-আহযাব, আয়াত-২১)
মুসলমানদের অনুসৃত ধর্মগ্রন্থ আল-কোরআন সমস্যা জর্জরিত মানবসমাজের ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়, জাতীয়, রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক জীবন পর্যন্ত সর্বস্তরের সকল সমস্যার নিখুঁত ও ন্যায়ভিত্তিক সমাধান পেশ করেছে। মহানবী (সা.)-এর প্রতি অবতীর্ণ আল-কোরআনে জীবন সমস্যার সমাধানে বিবৃত মূল নীতিমালা প্রথমে নবীজি নিজের জীবনে অনুসরণ করেন এবং দুনিয়াবাসীর সামনে জীবন্ত ও পূর্ণাঙ্গ বাস্তব আদর্শরূপে একে তুলে ধরেন। তিনি নিজের দৈনন্দিন জীবনযাত্রার মাধ্যমে মানবতার পরিপূর্ণ বিকাশকে আল-কোরআনের আলোকে রূপায়িত করেছেন। সুন্দরতম চরিত্রের অধিকারী রাসুলুল্লাহ (সা.) সম্পর্কে স্বয়ং আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই আপনি সুমহান চরিত্রে অধিষ্ঠিত।’ (সূরা আল-কালাম, আয়াত-৪) প্রকৃতপক্ষে রাসুলে করিম (সা.) আল-কোরআনের জীবন্ত রূপ। আল-কোরআনকে চর্চা ও অনুশীলন করতে হলে তাঁকে অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা দিকনির্দেশনা প্রদান করে বলেছেন, ‘আর রাসুল তোমাদের কাছে যা কিছু নিয়ে এসেছেন, তা তোমরা গ্রহণ করো এবং তিনি তোমাদের যা নিষেধ করেছেন তা থেকে তোমরা বিরত থাক।’ (সূরা আল-হাশর, আয়াত-৭) রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজেও এ সম্পর্কে বাণী প্রদান করেছেন, ‘নিশ্চয়ই আমি আদর্শ আখলাক (চরিত্রাবলি) পরিপূর্ণ করার জন্য প্রেরিত হয়েছি।’ (তিরমিজি)
অতএব, বিশ্বমানবতার মুক্তিদূত মহানবী (সা.)-এর প্রতি প্রগাঢ় শ্রদ্ধা, অশেষ ভক্তি ও হূদয় নিংড়ানো ভালোবাসা সুদৃঢ় করা, তাঁর রেখে যাওয়া ইসলামি বিধি-বিধান তথা আল্লাহর বাণী পবিত্র কোরআন ও সুন্নাহকে আঁকড়ে ধরার মতো ঈমানি চেতনা জাগ্রত করা, যাবতীয় কর্মকাণ্ডে নবী করিম (সা.)-এর সুমহান নীতি, জীবনাদর্শ ও শিক্ষা বাস্তবায়ন করা এবং জীবনের সর্বক্ষেত্রে নবীজিকে অনুসরণ করা প্রত্যেক ধর্মপ্রাণ মুসলমানের জন্য অত্যাবশ্যক।

৪১২

কোন তথ্যসূত্র নেই

আপনার জন্য প্রস্তাবিত

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

To preach and propagate the values and ideals of Islam, the only complete code of life acceptable to the Almighty Allah, in its right perspective as a religion of humanity, tolerance and universal brotherhood and bring the majority people of Bangladesh under the banner of Islam

অফিসিয়াল ঠিকানা: অফিসিয়াল ঠিকানা : ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, আগারগাঁও, শের-এ- বাংলা নগর, ঢাকা -১২০৭