সংবাদ :
জাতীয় : জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত- বাংলাদেশের আকাশে আজ পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে, ১০ জুলাই রবিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে ইসলামিক বিশ্ব : আরাফাতে খুতবা দিবেন শায়খ ড. মুহাম্মাদ আবদুল করীম , হজের খুতবা সরাসরি সম্প্রচার হবে বাংলাসহ ১৪ ভাষায় আন্তর্জাতিক : আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ৩য় স্থান অর্জনকারী সালেহ আহমদ তাকরিমকে সংবর্ধনা প্রদান করল ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন

  • টেক্সট সাইজ
  • A
  • A
  • A
  • |
  • রং
  • C
  • A
  • A
  • A

জুমার খোৎবা আরবী ছাড়া অন্য ভাষায় দেয়া যাবে কি ?
প্রিন্ট
প্রকাশঃ : শুক্রবার ১৩/০৭/২০১৮

জুমার খোৎবা আরবী ছাড়া অন্য ভাষায় দেয়া যাবে কি ?

*** যে কোন মসজিদে মুসল্লীদের আধিক্যতা ও Majority 'র প্রতি বিবেচনা করে খোৎবা'র ভাষা নির্ধারণ করা মসজিদ কর্তৃপক্ষ ও খতীব সাহেবের উপর অপরিহার্য । এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি আমলে না নেয়ার কারণে আমাদের আলেম সমাজএর মধ্যে কিছু কিছু আলেম / খতিব  সাধারণ মুসলমানদেরকে নেহায়েত বড় একটি জ্ঞান লাভের  ক্ষেত্র   থেকে যুগ যুগ ধরে বণ্চিত করে আসছেন ।

*** মহান আল্লাহপাক বলেন ,
و ما أرسلنا من رسول إلاّ بلسان قومه ليبين لهم
" আমি কোন রসুল আ:কে তাঁর সম্প্রদায়ের ভাষাবহির্ভূত প্রেরণ করিনি । এ কারণে যে, যেনো তিনি তাঁদের কাছে বিস্তারিত ব্যাখ্যা তুলে ধরতে পারেন ।" সূরা ইব্রাহিম ৩

*** এ আয়াত দ্বারা প্রতিয়মান হয় যে, নবী আ: ও তাঁর উম্মতের ভাষা যদি অভিন্ন না হয় , তা'হলে তাওহীদের বাণী প্রচারের কাজটি মোটেই সম্ভব নয় । বরং আমার তাফসীর হচ্ছে যে, মানুষের প্রতি তাওহীদের দাওয়াত অতি সহজ করার লক্ষ্যে আল্লাহপাক উভয়ের জন্য একই ভাষা নির্বাচন করেছেন ।

*** জুমার খোৎবার ন্যায় একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যদি খতীব ও শ্রোতাদের মধ্যে ভাষাগত বিভক্তির কারণে অজানা থেকে যায় , তা'হলে খোৎবা'র হক্ব কতটুকু আদায় করা হলো ???

*** মহানবী সা: আরবী ছিলেন । যদি কুরআন মজিদ আরবী ভাষায় না হতো তখন অবস্হা কি দাঁড়াতো ? মহান আল্লাহপাক বলেন
و لو جعلناه قرانا أعجميا لقالوا لو لا فصلت اياته أأعجمي و عربي ؟
" যদি আমি পবিত্র কুরআনকে অনারবী ভাষায় করতাম , তখন কাফেররা বলতো , এ বিভাজন কেন ? রসুল সা: হলেন আরবী আর কিতাব হলো অনারবী ???????
সূরা ফুস্সিলাত ৪৪

*** মহানবী সা: আরবী ছিলেন । সাহাবীগণ আরবী ছিলেন । আর তাই তিনি আরবী ভাষায় খোৎবা প্রদান করবেন , এটাইতো স্বাভাবিক । মুষ্টিমেয় সাহাবী রা: যদি অনারবী হয়ে থাকেন , সেটা তো ধর্তব্য নয় । কেননা খোৎবার ভাষাটি নির্ধারিত হতে হবে সংখ্যাধিক্যের ভিত্তিতে । বরং মহানবী সা:'র খোৎবা থেকেও এ কথা সুস্পস্ট হলো যে, Majority সাহাবী রা: আরবী ছিলেন বিধায় , তিনি আরবী ভাষায় খোৎবা দিয়েছেন ।

*** নাকি অধিকাংশ সাহাবী রা: অনারবী ছিলেন ???????? !!!!!!!!!!!!

*** সমস্ত ভাষা আল্লাহর দান । বরং ইহা তাঁর নিদর্শন সমূহের অন্যতম । তিনি বলেন ,
و من ايته خلق السموت و الارض و اختلاف السنتكم و الوانكم ان في ذالك لآيات للعالمين
" এবং তাঁর নিদর্শন সমূহের অন্যতম আকাশ ও ভূখন্ড সৃষ্টি এবং তোমাদের ভাষা ও বর্ণগত পার্থক্য । এখানে শিক্ষিত সমাজের জন্য শিক্ষনীয় বিষয় নিহিত ।"
সূরা আর রোম ২২

*** ইসলাম ধর্মে ইজতিহাদ একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় । যদি ইজতিহাদকে অস্বীকার করা হয় , তা'হলে মাইক থেকে আরম্ভ করে Electricity সহ কোন কিছুই হালাল করা যাবেনা । হানাফী মাযহাবের ফতওয়ায়ে শামীতে লেখা আছে
من لم يعرف زمانه فهو جاهل
" যে ব্যক্তি তাঁর সময়ের সংগে মানিয়ে চলতে পারেনা , সে একজন মূর্খ ।"
মহানবী সা: বলেছেন
من سن سنة فله اجر
" যে ব্যক্তি একটি কল্যাণকর পদ্বতীর সূচনা করলো , তাঁর জন্য প্রতিদান রয়েছে ।"

*** খোৎবা ও নামাজ কি সমপর্যায়ের ? নবী করিম সা: সহ খোলাফায়ে রাশেদীন রা: খোৎবা চলাকালিন মুসল্লীদের প্রশ্নের জবাব দিতেন । এক সাহাবী রা:তাহিয়্যাতুল মসজিদ না পড়ে বসে গেলে রসুল সা: খোৎবা চলাকালিন অবস্হায় তাঁকে সুন্নত পড়ার নির্দেশ দেন । পক্ষান্তরে নামাজ চলাকালিন সময়ে কথা বলা যাবে কি ? কথা বলা হলে নামাজ কি বাতিল হবেনা ??? তা'হলে উভয় কাজটি সমপর্যায়ের কি ভাবে হলো ?

*** যদি খোৎবার মান নামাজের সমান হয় , তা'হলে লক্ষ লক্ষ বাংগালী আরবী খোৎবা'র কিছুই না বুঝে প্রতি শুক্রবার নামাজ শেষে ঘরে ফিরে যান , তাঁদের বুঝতে না দেয়ার দায় - দায়িত্ব কওমী আলেমগণ নেবেন কি ???
এ দায়িত্ব নিতে হবে কওমী হুজুরদের । আমরা তাঁদের ছাড়বোনা ।

قال زيد بن ثابت رضي الله عنه قال لي رسول الله صلي الله عليه و سلم " اتحسن السريانية ؟ قلت لا ، قال فتعلمها ، اتعلمتها في سبعة عشر يوما "
سير إعلام النبلاء ج٢ زيد بن ثابت
" সাইয়িদানা যায়েদ বিন সাবেত রা: বলেন " মহানবী সা: আমাকে বললেন , তুমি হিব্রু ভাষা জানো ? বললাম না । বললেন ইহা অধ্যয়ন করো । আমি ইহা মাত্র সতের দিনে সম্পূর্ণ শিখে ফেলেছিলাম । "
 

আমি সামান্য জ্ঞানে আর কিবা আলোচনা করতে পারি । মানুষ কে বিভ্রান্তিতে ফেলার কোন অভিপ্রায় আমার নাই । আমি শুধু চেষ্টা করলাম কেন আরবী ভাষা ছাড়াও খুতবা দেওয়া যাবে । তাতে খুতবার উদ্দেশ্য হাসিল হবে ।

৬৬৮

কোন তথ্যসূত্র নেই

আপনার জন্য প্রস্তাবিত

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

To preach and propagate the values and ideals of Islam, the only complete code of life acceptable to the Almighty Allah, in its right perspective as a religion of humanity, tolerance and universal brotherhood and bring the majority people of Bangladesh under the banner of Islam

অফিসিয়াল ঠিকানা: অফিসিয়াল ঠিকানা : ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, আগারগাঁও, শের-এ- বাংলা নগর, ঢাকা -১২০৭