সংবাদ :
জাতীয় : জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত- বাংলাদেশের আকাশে আজ পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে, ১০ জুলাই রবিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে ইসলামিক বিশ্ব : আরাফাতে খুতবা দিবেন শায়খ ড. মুহাম্মাদ আবদুল করীম , হজের খুতবা সরাসরি সম্প্রচার হবে বাংলাসহ ১৪ ভাষায় আন্তর্জাতিক : আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ৩য় স্থান অর্জনকারী সালেহ আহমদ তাকরিমকে সংবর্ধনা প্রদান করল ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন

  • টেক্সট সাইজ
  • A
  • A
  • A
  • |
  • রং
  • C
  • A
  • A
  • A

আমরা কোন ধরনের রোজাদার ?
প্রিন্ট
প্রকাশঃ : বুধবার ২৩/০৫/২০১৮

রোজাদারের শ্রেণি বিভাগ
'
হাদিস শরীফ থেকে আমরা জানতে পারি যে, রমযান মাসে যারা সিয়াম পালন করেন তাদের দুটি শ্রেণী রয়েছে। 
১. যাদের পূর্ববর্তী সকল গুনাহ মাফ ক্ষমা করা হবে। 
২. যাদের ক্ষুধা-পিপাসায় কষ্ট করা ছাড়া কিছুই লাভ হবে না। 
:
প্রথম শ্রেণীর রোজাদার সম্পর্কে রাসূল সা বলেছেন, 
من صام رمضان ايمانا واحتسابا غفر له ما تقدم من ذنبه. البخاري.
،যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং আল্লাহর নিকট সওয়াব অর্জনের খাটি নিয়্যতে রমদানের সিয়াম পালন করবে তার পূর্ববর্তী সকল গুনাহ ক্ষমা করা হবে। 
:
দ্বিতীয় শ্রেণীর রোজাদার প্রসঙ্গে রাসূল সা বলেছেন,
رب صائم ليس له من صيامه الا الجوع ورب قائم ليس له من قيامه الا السهر.
অনেক রোজা পালনকারী আছে যার রোজা থেকে শুধু ক্ষুধা ও পিপাসা ছাড়া আর কোন লাভ হয় না। এবং অনেক কিয়ামকারী বা তারাবীহ-তাহাজ্জুদ পালনকারী আছে, যাদের কিয়াম-তারাবীহ থেকে শুধু রাত জাগরণ ছাড়া আর কোনই লাভ হয় না। 

এরূপ রোজাদারের দুর্ভাগ্যের বিষয় জানিয়ে রাসূল সা আরো এরশাদ করেছেন, 
بعد من ادرك رمضان فلم يغفر له.
যে ব্যক্তি রমযান মাস পেল , কিন্তু এই মাসে তাকে ক্ষমা করা হল না, সেই ব্যক্তি আল্লাহর রহমত থেকে চির বঞ্চিত-বিতাড়িত। 
ইবনে মাজাহ॥ 
:
আমরা যারা সিয়াম পালন করি আমাদেরকে ভাবতে হবে আমরা কোন দলে পড়ব। আর তা জানতে হলে সিয়ামের অর্থ বুঝতে হবে। রাসূল সা বলেছেন,
١- ليس الصيام من الاكل والشرب انما الصيام من اللغو والرفث. 
"পানাহার বর্জনের নাম সিয়াম নয়, সিয়াম হলো অনর্থক ও অশ্লীল কথা কাজ বর্জন করা।" 

তাহলে চিন্তাহীন, অনুধাবনহীন, সৎকর্ম হীন পানাহার বর্জন "উপবাস" বলে গণ্য হতে পারে তবে ইসলামী সিয়াম সিয়াম বলে গণ্য হবে না। 
'
সিয়াম অর্থ আল্লাহর অর্জনের জন্য সকল হারাম, হারাম, মাকরুহ ও পাপ বর্জনের সাথে সাথে হালাল খাদ্য, পানীয় ও সম্ভোগ থেকে নিজেকে বিরত রাখা। 

রাসুল সা আরো বলেছেন,

٢- من لم يدع قول الزور والعمل به فليس لله حاجة في أن يدع طعامه وشرابه. 
যে ব্যক্তি পাপ, মিথ্যা বা অন্যায় কথা, অন্যায় কর্ম, ক্রোধ, মুর্খতাসুলভ ও অজ্ঞতামূলক কর্ম ত্যাগ করতে না পারবে, তার পানাহার ত্যাগ করাতে আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই। 
বুখারী॥ 

৩৩৮

কোন তথ্যসূত্র নেই

আপনার জন্য প্রস্তাবিত

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

To preach and propagate the values and ideals of Islam, the only complete code of life acceptable to the Almighty Allah, in its right perspective as a religion of humanity, tolerance and universal brotherhood and bring the majority people of Bangladesh under the banner of Islam

অফিসিয়াল ঠিকানা: অফিসিয়াল ঠিকানা : ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, আগারগাঁও, শের-এ- বাংলা নগর, ঢাকা -১২০৭